বৃহস্পতিবার, 12 ফেব্রুয়ারী 2015 13:07

বিলকুড়ালিয়ায় সংগ্রামী ভূমিহীনদের স্বপ্ন বুনন

যায়যায়দিন ।। পাবনার চাটমোহর উপজেলার বিলকুড়ালিয়া বিলের ৩৭১.২১ একর খাস জমি নিয়ে ২২ বছর সংগ্রামের পর বিজয়ী ভূমিহীনরা এবার প্রথমবারের মতো স্বপ্নের বোরো রোপণ করেছেন।

১৯৯৩ সাল থেকে বিলকুড়ালিয়ার আশপাশের ১ হাজার ৫৯০টি ভূমিহীন পরিবাব বিলের ৩৭১.২১ একর খাস জমি বন্দোবস্ত পাওয়ার জন্য সংগ্রাম করে আসছিল। এ দীর্ঘ সময় এসব জমি এলাকার ভূমিগ্রাসী জোতদারদের দখলে ছিল। আর তাদের বিরুদ্ধেই ছিল ভূমিহীনদের সংগ্রাম। এ নিয়ে অনেক মামলা-মোকদ্দমা হয়েছে। ঝরেছে রক্ত। শেষপর্যন্ত সংগ্রামে তারা জয়ী হলে গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত জেলা প্রশাসন ৪০৯টি ভূমিহীন পরিবারের নামে স্থায়ী বন্দোবস্তের জন্য কবুলিয়ত এবং রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করেছে। আরো ৪৫৪টি পরিবারের বন্দোবস্ত জেলা বন্দোবস্ত কমিটির সভায় অনুমোদিত হয়ে জেলা প্রশাসকের স্বাক্ষর ও চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য প্রক্রিয়াধীন আছে। পর্যায়ক্রমে সবার নামেই বন্দোবস্ত দেয়া হবে। এ পর্যন্ত বন্দোবস্ত পাওয়া ভূমিহীনরা এবারই প্রথম উচ্ছ্বাসের সঙ্গে নিজের জমিতে ২৮, ২৯ ও ৭৬ জাতের বোরো অর্থাৎ স্বপ্ন রোপণ করেছেন। ৪১টি শ্যালো, ২টি ডিপ ও ১টি মিনি ডিপ-টিউবওয়েলের পানিতে চলছে সেচকাজ। 

ভূমিদস্যুদের মিথ্যা মামলার আসামি ও সদ্য বন্দোবস্ত পাওয়া মহিলা নেত্রী সামিরন খাতুন জানান, অল্পদিনের মধ্যে ৩০ শতক জমি থেকে তিনি সারাবছরের খাওয়ার ধান ঘরে তুলতে পারবেন। বন্দোবস্তপ্রাপ্ত ভূমিহীন নেতা হাসান আলী জানান, আবহাওয়া ভালো থাকলে ভূমিহীনরা বিলকুড়ালিয়া মৌজার খাস জমি থেকে ২৫ হাজার মণ ইরি-বোরো ধান ঘরে তুলতে পারবেন।

ভূমিহীনদের সংগঠক এলডিও'র নির্বাহী পরিচালক মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান রানা মাস্টার দীর্ঘ লড়াই-সংগ্রাম করে বিলকুড়ালিয়ার খাস জমি ভূমিহীনদের বন্দোবস্ত পাওয়াকে মহতী অর্জন বলেই মনে করেন।