রবিবার, 21 অগাস্ট 2016 12:28

সোনালি আঁশে কৃষাণির হাসি

সমকাল || এক সময় পাট বাংলাদেশে প্রধান অর্থকরী ফসল ছিল। বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাজারে চাহিদা কম থাকায় এবং দেশের অধিকাংশ পাটকল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পাটের গুরুত্ব অনেকটা কমে গেছে। কিন্তু গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যকে টিকিয়ে রাখতে মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন জায়গায় এ মৌসুমে উৎকৃষ্ট মানের পাট চাষ হচ্ছে। মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার হাসাইল গ্রামে দেখা যায়, এ গ্রামে বসবাসরত অধিকাংশ নিতান্ত গরিব নারীরা সোনালি পাটের আঁশ ছাড়িয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। গত কয়েক বছর প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে এ অঞ্চলে পাট চাষে প্রায় বিমুখ হয়েছিলেন চাষিরা। এবার নতুন আশায় সোনালি আঁশখ্যাত পাট চাষে বাম্পার ফলন পেয়ে নারীরাও ঘরে বসে নেই। বিভিন্ন বয়সের নারীরা পাটের বোঝা বেঁধে পানিতে জাগ দেওয়া থেকে শুরু করে আঁশ ছাড়ানো পর্যন্ত পুরুষের সঙ্গে সমান তালে জীবিকা নির্বাহ করছেন। দেখা হয় মধ্যবয়সী হালিমার সঙ্গে। কথা বলতেই জেনে নিই তার ছোট্ট জীবনের দীর্ঘ সংগ্রামের গল্প। অল্প বয়সে বিয়ে হয় তার। স্বামী ছিল পাশের গ্রামেরই এক কৃষকের ছেলে। পৈতৃক পেশাতেই ছিল স্বামী আলী আহম্মদ। অভাবের তাড়নায় সামান্য কৃষিজমি বিক্রি করে বিদেশে পাড়ি জমায়। বর্তমানে হালিমার খোঁজখবর নেয় না তার স্বামী। হালিমা চার ছেলেমেয়ের মুখে দু'মুঠো খাবার তুলে দিতে এবং পড়াশোনার খরচ জোগাতে পাটের আঁশ ছাড়ানোর কাজ নিয়েছেন। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত পাটের আঁশ ছাড়িয়ে তিনি প্রতিদিন রোজগার করছেন ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা। এ রোজগারের টাকা দিয়ে পাঁচজনের সংসার ভালোভাবেই চলে যায়। একটু এগিয়ে কথা হয় লিপি রানীর সঙ্গে। পাটের আঁশ ছাড়াতে ছাড়াতে তিনি বললেন, মাত্র ১৫ বছর বয়সে বিয়ে হয়েছে আমার। স্বামী সমির চন্দ্র একজন চাষি। বিয়ের পর থেকেই স্বামীর সঙ্গে নিজস্ব জমিতে কাজ শুরু করেন। বাড়িতে রান্না-বান্নার কাজ ও ছেলেমেয়েদের দেখাশোনার পরও স্বামীর সঙ্গে প্রতিনিয়ত জমিতে কাজ করে আসছেন। জমিতে পাটের বীজ বপন, পানি দেওয়া, রোদে শুকানো ও পাটের আঁশ ছাড়ানোসহ সব কাজে অভিজ্ঞ নারী শ্রমিক তিনি। শুধু হাসাইল গ্রামের হালিমা ও লিপি রানীই নন_ তাসলিমা, ফাতেমা বেগম, রুমা, রোজিনা, শেফালী, বিষুষ্ণপ্রিয়া, রিনা, খালেদা বেগম, তামান্না, ফুলবানু, বিশাখা, চন্দ্রাসহ আটিগাঁও, ডাইনগাঁও মান্দ্রা, বয়ড়াতলা গ্রামের কয়েকশ' পরিবারের নারীরা পাটের আঁশ ছাড়িয়ে উপার্জিত অর্থ দিয়ে সংসার চালাচ্ছেন। এক সময় বন্যার করাল গ্রাসে তাদের ভিটেমাটি বিলীন হয়ে যায়। বর্তমানে সেখানে নতুন করে জেগে ওঠা চরে তারা কোনোরকমে বসতবাড়ি তৈরি করে জীবনযাপন করছেন। প্রায় জেগে ওঠা চরেই নতুন করে পাট চাষ করে এগিয়ে যাচ্ছেন তারা। শ্রাবণ থেকে ভাদ্র মাসের মাঝামাঝি সময়ে পাট কেটে ১০ থেকে ১৫ দিন পানির নিচে ডুবিয়ে রেখে নিখুঁত হাতে নারীরা পচা পাট থেকে আঁশ ও আলাদা করেন।

পাট গাছের বিভিন্ন অংশের মধ্যে এই আঁশই সবচেয়ে মূল্যবান। প্রতি মণ পাট ৫০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু পাট চাষে নিয়োজিত নারী শ্রমিকরা বিরাট অবদান রাখলেও অধিকাংশ নারী শ্রমিক ন্যায্য পারিশ্রমিক পান না। নারীরা পুরুষের সমান কাজ করেও মজুরি পাচ্ছেন তাদের চেয়ে কম। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত পাটের আঁশ ছাড়িয়ে একজন পুরুষ মজুরি পান ৩৮০ থেকে ৪১০ টাকা আর নারী শ্রমিক পান ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা। তারপরও তারা থেমে নেই। নারীরা পরিবার ও সমাজের উন্নয়নে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে পাটের আঁশ ছাড়িয়ে ভাগ্যোন্নয়নে এগিয়ে যাচ্ছেন।

এই ক্যাটেগরিতে অন্তর্ভুক্ত: « কেঁচো সারে স্বাবলম্বী ২০ নারী