বৃহস্পতিবার, 19 মে 2016 13:22

জয়পুরহাটে তৈরি হয়েছে আলুর প্রাকৃতিক সংরক্ষণাগার

দৈনিক ইত্তেফাক || জয়পুরহাটের কৃষকরা হিমাগারে আলু সংরক্ষণের সুযোগ না পেয়ে কম দামে আলু বিক্রি করতে বাধ্য হয়। তাই হিমাগারের বিকল্প হিসাবে পাঁচবিবি উপজেলার কুয়াতপুর গ্রামের কৃষক শহিদুল ইসলাম গড়ে তুলেছেন আলুর ‘প্রাকৃতিক সংরক্ষণাগার’। কৃষক শহিদুল ইসলাম জানান, পল্লী কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশনের কৃষি ইউনিটের আর্থিক ও কারিগরি সহযোগিতায় ‘জাকস ফাউন্ডেশন’র তত্ত্বাবধানে তৈরি করা হয়েছে প্রাকৃতিক আলু সংরক্ষণাগার। চতুর্দিকে ৬ ফিট করে একটি বাঁশের চাটাইয়ের ঘর, উপরে খড়ের ছাউনি। ভেতরে মাচার মতো ৩টি স্তর বা তাক করে তাতে প্রায় এক’শ মণ আলু সাজিয়ে রাখা যায়। শহিদুল ইসলাম আরো জানান, ৭ মার্চ প্রাকৃতিক সংরক্ষণাগারে রাখা আলুর মান এখনও ভালো আছে।

জাকস ফাউন্ডেশন, শালাইপুর শাখার মাধ্যমে এটি তদারকি করা হচ্ছে। জাকস ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক নূরল আমীন ইত্তেফাক’কে বলেন, আলু সংরক্ষণের অভাবে কৃষকরা প্রকৃত দাম থেকে বঞ্চিত হয়। আবার আলু লাগানোর সময় হলে ভালো বীজ পাওয়া নিয়ে পড়েন সংকটে। এসব দিক বিবেচনা করে দু’টি ‘প্রাকৃতিক আলু সংরক্ষণাগার’ গড়ে তোলা হয়েছে পরীক্ষামূলকভাবে। এতে কৃষক লাভবান হবেন এবং বীজের সমস্যাও থাকবে না।